1. admin@n-vabna.com : Rifan : Rifan Ahmed
  2. mdmohaiminul77@gmail.com : Mohaiminul Islam : Mohaiminul Islam
  3. ischowdhury90@gmail.com : Riazul Islam : Riazul Islam
বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
দেশব্যাপী প্রচার ও প্রসারের লক্ষে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা সিভি পাঠান info.nagorikvabna@gmail.com অথবা হটলাইন 09602111973-এ ফোন করুন।

বই উৎসবের প্রস্তুতি: সমস্যা কাটিয়ে উঠতে হবে দ্রুত

  • সর্বশেষ পরিমার্জন : শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ৭ বার পড়া হয়েছে

প্রতি বছর ১ জানুয়ারি অর্থাৎ বছরের প্রথম দিনটি উদ্ভাসিত হয়ে ওঠে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের হাসির আলোয়। প্রথম থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণ করা হয় এদিন। করোনা মহামারী সত্ত্বেও আগামী বছরের প্রথম দিনটিতেও এর ব্যতিক্রম হবে না বলে আমাদের বিশ্বাস। তবে এবার কয়েকটি সমস্যার কারণে এখন পর্যন্ত কোনো বই জেলা-উপজেলায় পাঠানো সম্ভব হয়নি।

জানা গেছে, মূলত তিনটি সমস্যার কারণে মুদ্রণকাজ আটকে যাওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে- হঠাৎ কাগজের দাম বৃদ্ধি, কাগজের মানে নতুন আরোপিত ‘বাস্টিং ফ্যাক্টর’ এবং মান তদারককারী প্রতিষ্ঠানের ছাড়পত্র প্রদানে জটিলতা। এছাড়া মাধ্যমিকের বইয়ের প্রচ্ছদের দ্বিতীয় ও তৃতীয় পৃষ্ঠায় এবার স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ ও ভাষা আন্দোলনের বিভিন্ন স্থিরচিত্র ক্যাপশনসহ যুক্ত করার ব্যাপারে বিলম্বিত সিদ্ধান্তও মুদ্রণকাজ আটকে থাকার একটি কারণ।

টানা ১১ বছর ধরে বিনামূল্যে পাঠ্যবই প্রদানের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এটি সরকারের অন্যতম ভালো কাজ নিঃসন্দেহে। কোনো কোনো বছর বই প্রকাশে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে বটে, তবে উদ্যোগটি যে মহৎ এতে কোনো সন্দেহ নেই। এত বিশাল কর্মযজ্ঞে কিছু ভুল-ত্রুটি থাকতেই পারে, আসতে পারে বিভিন্ন স্তরে বাধা। কখনও কখনও সংশ্লিষ্টরা ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে থাকে।

তবে মনে রাখতে হবে, মুষ্টিমেয় কিছু লোকের ব্যর্থতার কারণে একটি মহতী উদ্যোগ ভেস্তে যেতে পারে না। এ কার্যক্রমের ভুলত্রুটিগুলো কাটিয়ে উঠতে হবে দ্রুত।

প্রতি বছর বিনামূল্যের বই বিশেষত গ্রামাঞ্চলের দরিদ্র অভিভাবকদের জন্য এক বড় ধরনের স্বস্তি নিয়ে আসে। রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এ সহায়তায় তাদের আর্থিক কষ্টের বোঝা অনেকটাই লাঘব হয়। আমাদের বিশ্বাস, শুধু বিনামূল্যের বই নয়, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের জন্য রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে আরও অনেক কিছু করার আছে।

শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়াসহ প্রাথমিক শিক্ষার অন্য সমস্যাগুলোর যদি প্রতিকার করা যায়, তাহলে নতুন প্রজন্মের শিক্ষার ভিত শক্তভাবে গড়ে উঠতে পারবে, যা একটি জাতির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এবার করোনা পরিস্থিতির কারণে বই উৎসবের আয়োজন ও ব্যবস্থাপনায় হয়তো কিছুটা পরিবর্তন আসবে। তবে এ উৎসবে যেন কিছুতেই ছন্দপতন না ঘটে, সেদিক লক্ষ রাখতে হবে সংশ্লিষ্ট সবাইকে। মুদ্রণ সমস্যা কাটিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সব জেলা-উপজেলায় বই পাঠানো সম্ভব হবে এবং নতুন বছরের প্রথম দিনটিতে উৎসবে মেতে উঠবে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা, এটাই প্রত্যাশা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৮,৪৪৩
সুস্থ
৮৬,৪০৬
মৃত্যু
২,২৭৫

বিশ্বে

আক্রান্ত
৪৪,৭৭৪,২৪১
সুস্থ
৩২,৭২৭,১৩৮
মৃত্যু
১,১৭৯,২২৪
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব